জঙ্গল ও সৈকত উপভোগ করতে মান্দারবাড়িয়া

বর্ণনা

হাড়িয়াভাঙ্গা নদীর তীরের একপাশে ঘন সবুজ সুন্দরবন আর অন্যপাশে বঙ্গোপসাগরের মায়াবী জলরাশির অবিশ্রান্ত গর্জনে যেন নেশা ধরে যাবে আপনার। সৈকত পাড়ে হরিণ আর বাঘের পায়ের চাপ দেখে মনে হবে এই বুঝি বাঘে আসছে ! আর এই ভয়টাই এডভেঞ্চারের মাত্রা বাড়িয়ে দেবে কয়েকগুণ। 
মান্দারবাড়িয়া সৈকতের অবস্থান: সাতক্ষীরা জেলার হাড়িয়াভাঙ্গা নদীর তীরে মান্দারবাড়িয়া বন আর এই বনের সামনে বঙ্গোপসাগরের তীর জুড়ে অপরূপ মান্দারবাড়িয়া সমুদ্র সৈকতের অবস্থান।
মান্দারবাড়িয়া ভ্রমণের উপযুক্ত সময়: সুন্দরবনের বুক চিরে যাওয়া বিভিন্ন নদীর উপর দিয়ে যেতে হয় মান্দারবাড়িয়া সৈকতে। তাই ঝড়-বৃষ্টির ঋতু এড়িয়ে যাওয়ায় ভাল। সেক্ষেতে শীত মৌসুম অর্থাৎ অক্টোবর থেকে ফেব্রুয়ারি মাসের মধ্যে যাওয়ায় উত্তম। 
যেভাবে যাবেন মান্দারবাড়িয়া: মান্দারবাড়িয়া সমুদ্র সৈকতে যেতে হলে আপনাকে প্রথমেই যেতে হবে সাতক্ষীরার বুড়িগোয়ালিনীতে। সাতক্ষীরা সদর থেকে বুড়িগোয়ালীনির দূরত্ব প্রায় ৭০ কিলোমিটার। সহজে মান্দারবাড়িয়ায় যাওয়া যাবে বুড়িগোয়ালিনীর নীলডুমুরস্থ নৌঘাট থেকে। নীলডুমুর পর্যন্ত গাড়ীতে যাওয়া যায়, তার পরের পথ যেতে হবে ইঞ্জিন চালিত নৌকা বা স্পীড বোটে। এতে পৌঁছাতে সময় লাগবে ৬ থেকে ৭ ঘণ্টা। আর স্পিডবোটে বুড়িগোয়ালিনীর নীলডুমুর থেকে মান্দারবাড়িয়ায় যেতে সময় লাগবে দুই থেকে আড়াই ঘণ্টা।
মান্দারবাড়িয়া ভ্রমণে থাকা-খাওয়া: মান্দারবাড়িয়ায় থাকার কোনো ব্যবস্থা না থাকায় আপনাকে থাকতে হবে সাতক্ষীরার কোনো হোটেলে কিংবা শ্যামনগর রেস্ট হাউজে। সাতক্ষীরায় থাকার জন্য বেশকিছু আবাসিক হোটেল রয়েছে। আর মান্দারবাড়িয়ায় খাওয়ারও তেমন কোনো ব্যবস্থা নেই। তাই যাওয়ার সময় খাবার সাথে করে নিয়ে যাবেন। এছাড়া সাতক্ষীরা জেলা কুল, আম,ওল, মাছ এবং সুন্দরবনের খাঁটি মধুর জন্য বিখ্যাত, খেয়ে দেখতে পারেন।
মান্দারবাড়িয়া ভ্রমণে যেখানে যেখানে ঘুরতে পারেন: যেহেতু আপনি সাতক্ষীরা জেলার উপর নির্ভর করেই মান্দারবাড়ী যাবেন তাই সাতক্ষীরার সুন্দর স্থানগুলোও ঘুরে আসতে পারেন। সময় নিয়ে যেতে পারেন সুন্দরবন, জোড়া শিবমন্দির, মন্টু মিয়ার বাগান বাড়ী, সোনাবাড়িয়া মঠবাড়ি মন্দির, দেবহাটার বনবিবির বটগাছ, নলতা শরীফ এবং জাহাজমারীতে।
প্রয়োজনীয় কিছু টিপস:
  • সাতক্ষীরায় কয়েকটি ট্যুর প্যাকেজ এজেন্সী আছে যোগাযাগ করে মান্দারবাড়িয়াসহ আরও বেশ কয়েকটি স্পট ঘুরে আসত পারেন।
  • মান্দারবাড়িয়া ভ্রমণের সময় শুকনো খাবার সাথে রাখুন।

Total Ratings:

আরো দেখতে পারেন

Generic placeholder image
সোনালী সৈকত সোনার চরে
Generic placeholder image
সৌন্দর্যের আঁধার পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত
Generic placeholder image
দীঘা সমুদ্র সৈকত
Generic placeholder image
ঢেউয়ের গর্জন শুনতে শ্যামলাপুর
Generic placeholder image
নিরিবিলি সমুদ্র সৈকত কাট্টলীতে
Generic placeholder image
গুলিয়াখালী সমুদ্র সৈকত
Generic placeholder image
সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত দেখতে কুয়াকাটায়
Generic placeholder image
পারকি সমুদ্র সৈকত